ই পি আই বহির্ভূত যে টিকাগুলো শিশুকে দেয়া উচিতঃ

ই পি আই বহির্ভূত যে টিকাগুলো শিশুকে দেয়া উচিতঃ

বর্তমানে শিশুদের ই পি আই ভুক্ত টিকাগুলোর বাইরে আরও বেশ কিছু টিকা রয়েছে, যেগুলো বেসরকারিভাবে বিভিন্ন ক্লিনিক, সেবা কেন্দ্র এবং হাসপাতালে দেয়া হয়। এ সকল টিকা শিশুকে দেয়া প্রয়োজন। এতে করে শিশু বিভিন্ন ভাইরাস জনিত রোগ হতে রক্ষা পাবে।

বর্তমানে, তালিকায় উল্লেখিত টিকাগুলো বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে। সম্ভব হলে শিশুকে এই টিকাগুলো দেয়া উচিত।

# টিকা দেয়ার বিষয়ে অভিভাবকদের জন্য প্রয়োজনীয় কিছু তথ্যঃ

• টিকা দেয়ার পর টিকা প্রদানের জায়গায় গরম সেঁক দেয়া যাবে না।

• শিশুর দেহে যে স্থানে বিসিজি টিকা দেয়া হয় সে স্থানটি টিকা দেয়ার ৩ সপ্তাহ পর লাল হয়ে ফুলে যাবে। তারপর সেখান থেকে সামান্য পুজ বের হবে, যা পরবর্তী ২-৩ মাসের মধ্যে আস্তে আস্তে ভাল হয়ে যাবে। যদি বিসিজি টিকা দেয়ার পর এ রকম প্রতিক্রিয়া দেখা না দেয় তবে বুঝতে হবে টিকা কাজ করছে না। সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

• সাধারন সর্দি – কাশি, ডায়রিয়া, জ্বরজনিত খিঁচুনি, অপুষ্টিজনিত রোগ এবং শিশুর মস্তিষ্কের পক্ষাঘাত (সেরিব্রাল পল্ সি) ইত্যাদি রোগ হলে টিকা দিতে কোন বাধা নেই। তবে জ্বর ছাড়া খিঁচুনি হয় এমন শিশুদের ডিপিটি দেয়ার আগে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

• টিকা দেয়ার পর শিশুর সামান্য জ্বর আসতে পারে ও ব্যাথা হতে পারে। সেক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শে প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষধ মাত্রা অনুযায়ী খাওয়ালে তা কমে যায়।

• তবে টিকা দেয়ার পর যদি শিশুর কোন পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হয় (যেমনঃ বেশি জ্বর, খিচুনী, মাথার তালু ফুলে যাওয়া, শিশু অনবরত কাঁদতে থাকা), সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

• শিশুকে টিকার সকল ডোজ সঠিক সময়ে দিতে হবে। অন্যথায় টিকা সঠিকভাবে কাজ করবে না। সময়মত টিকা না দেয়া হলে, ৭ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুকে সব টিকা দেয়া যাবে। এক্ষেত্রে প্রথমবার দিতে হবে ডিপিটি, পোলিও ও বিসিজি টিকা। এর ১ মাস পর হাম এবং তারপর ২ মাস পর পর আবার ডিপিটি ও পোলিও টিকা দিতে হবে। তবে এ ক্ষেত্রে শিশুকে বিসিজি দেয়ার পূর্বে চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে নিতে হবে।

টিকা প্রদানে অবহেলা করলে, শিশুর স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত হতে পারে। এমনকি মৃত্যুর ঝুঁকি সৃষ্টি হতে পারে।

একই টিকার ২ টি ডোজের মধ্যে কমপক্ষে ২৮ দিনের বিরতি থাকা উচিত। ২৮ দিনের মধ্যে ২য় ডোজ প্রদান করা হলে সেটি ১ম ডোজ হিসেবেই গণ্য হবে।

একই দিনে ভিন্নধরনের একাধিক টিকা দেয়া যায়।

সুস্থ থাকুক, সকল শিশু।

Leave a Reply

×

Cart