নবজাতক বা ছোট শিশুকে গোসল (২):

নবজাতক বা ছোট শিশুকে গোসল (২):

গোসলের পূর্ব প্রস্তুতিঃ

০১. পরিষ্কার ও বড় প্লাস্টিকের গামলা বা বাথটাবে শিশুকে গোসল করানো ভালো। বাথটাব বা গামলা বড় হলে শিশু গোসলের সময় হাত-পা ছুড়াছুড়ি করতে পারে। আর প্লাস্টিক হলে শিশুর আঘাত লাগার ভয় থাকে না।

০২. শিশুর গোসলের পানি ভালোভাবে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা (কুসুম গরম) করতে হবে। শিশুকে গোসল করানোর আগে হাত ডুবিয়ে পানির উষ্ণতা পরীক্ষা করতে ভুলবেন না।

০৩. শিশুর গোসলের পানিতে ডেটল বা স্যাভলন মেশানো যাবে না। তাতে করে শিশুর শরীরে লাল লাল দানা বা র‍্যাশ উঠতে পারে।

০৪. শিশুর গোসলের পূর্বে তোয়ালে, জামা- কাপড়, লোশন, তেল, পাউডার, সাবান, শ্যাম্পু ইতাদি প্রস্তুত রাখতে হবে।

০৫. শিশুকে যিনি গোসল করাবেন তার হাতের আংটি, চুরি বা অন্যান্য অলংকার খুলে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে পরিচর্যাকারীর হাতে নখ যেন বড় না থাকে এবং তার কাপড়ে যেন সেফটিপিন, হুক ইত্যাদি  আঁচড় লাগার মতো কিছু যেন না থাকে।

গোসলের সময়ঃ

০১. শিশুকে সাবধানে পানিতে রাখতে হবে যেন শিশুর অর্ধেক দেহ পানির নিচে  আর বাকিটা পানির উপরে থাকে।

০২. মেয়ে শিশুর যৌনাঙ্গে অনেক সময় সাদা ময়লা জমে থাকে। তাই গোসল করানোর আগে ঐ স্থানটি পানি ভেজান তুলা দিয়ে পরিষ্কার করে দিতে হবে ।

০৩. শিশুর মুখমণ্ডল পরিষ্কার করতে হবে, মুখের ভেতরটা নরম কাপড় বা নরম প্লাস্টিকের ব্রাশ দিয়ে পরিষ্কার করে দিতে হবে। এরপর বাম হাতের উপর শিশুর মাথা উঁচু করে ধরে রাখতে হবে। এরপর মুখমণ্ডল পানি দিয়ে ধুয়ে দিতে হবে।

০৪. মুখমণ্ডল ধোয়া হলে এরপর শিশুকে বেবি বডি ওয়াশ বা শ্যাম্পু ছোট রুমালে মেখে শরীর ও মাথা পরিষ্কার করে দিতে হবে, তবে তা প্রতিদিন ব্যবহার করা উচিত নয়। শিশুর দেহের ভাঁজগুলো যেমন- গলা, কানের  পিছনে, কুচকি, বগল, নিতম্ব ও যৌনাঙ্গের ভাজগুলো ভালভাবে পরিষ্কার করে দিতে হবে।

০৫. সব শেষে শিশুর গায়ে পানি দিয়ে ধুয়ে দিতে হবে এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যেন কানে ও নাকে পানি না যায়।

গোসলের শেষ প্রস্তুতিঃ

০১. গোসল শেষে তাড়াতাড়ি শুকনো পরিষ্কার তোয়ালে জড়িয়ে ধরতে হবে। এরপর আলতো চাপ দিয়ে সমস্ত শরীর মুছে দিতে হবে।

০২. গোসলের পর শিশুরা সাধারণত শরীরে লোশন বা পাউডার লাগাতে পছন্দ করে। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন শরীরের ভাঁজগুলোতে যেন পাউডার জমে না থাকে। এরপর শিশুকে নরম, ঢিলেঢালা, আরামদায়ক কাপড় পড়িয়ে দিতে হবে। যাতে তার হাত পা ছুড়াছুড়ি করতে অসুবিধা না হয়।

বিঃদ্রঃ শিশুকে গোসল করানোর সময় এবং শেষের কাজগুলো দ্রুত করতে হবে যেন তার ঠাণ্ডা লেগে না যায়।

Leave a Reply

×

Cart